শিক্ষা সংস্কারের বিদ্যাসাগর

ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের অন্যতম কৃতিত্ব শিক্ষা সংস্কার। হিন্দুশাস্ত্রবিদ হয়েও ধর্মকে শিক্ষাক্ষেত্র থেকে নির্বাসিত করতে বিন্দুমাত্র দ্বিধা করেননি বিদ্যাসাগর মহাশয়। সংস্কৃত কলেজের দ্বার শূদ্রদের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া, অষ্টমী ও প্রতিপদের পরিবর্তে রবিবার সাপ্তাহিক ছুটির প্রবর্তন ছাড়াও বেদান্ত ও সাংখ্যকে ভ্রান্তদর্শন বলে ব্যাখ্যা করে তার পরিবর্তে দেশে পাশ্চাত্য শিক্ষা প্রবর্তনের পক্ষে তাঁর মতদান, এক উদার ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষাদর্শের সূচনা ঘটায়। মাতৃভাষার মাধ্যমে শিক্ষার তিনি ছিলেন একান্ত পক্ষপাতী। এজন্য বাংলা বর্ণমালাকে সংস্কৃত ব্যাকরণের অযৌক্তিক নিয়মজাল থেকে মুক্ত করে নির্মেদ ও আধুনিক করে তোলাকে তিনি বিশেষ প্রয়োজনীয় মনে করেছিলেন। বর্ণপরিচয় গ্রন্থে তাঁর লিপিসংস্কারই পরবর্তীকালে বাংলা লিপির আদর্শ হয়ে দাঁড়ায়। আজ পর্যন্ত এই লিপিই বাংলায় প্রচলিত। অন্যদিকে বিভিন্ন উচ্চমানের পাঠ্যপুস্তক রচনা করেও তিনি শিক্ষাব্যবস্থার অগ্রগতিতে বিশেষ সহায়তা করেন। এই সব পাঠ্যপুস্তকগুলিও তাঁর ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষাচেতনার উজ্জ্বল নিদর্শন। এছাড়াও গ্রামে গ্রামে স্কুল স্থাপন, দরিদ্র ছাত্রদের জন্য অবৈতনিক বিদ্যালয়, উচ্চশিক্ষার্থে কলেজ স্থাপন করে শুধুমাত্র কলকাতার উচ্চবিত্ত সমাজেই নয়, সমগ্র বাংলার ঘরে ঘরে সাক্ষরতার আলো জ্বালানোর ব্রত নেন তিনি। মেট্রোপলিটান ইনস্টিটিউশনে তিনি দেখিয়ে দেন শুধুমাত্র ভারতীয় অধ্যাপকদের সাহায্যেই ইংরেজের তুল্য উচ্চমানের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গঠন সম্ভব কিনা।

বিজ্ঞান শিক্ষার বিকাশ ও বৈজ্ঞানিক চিন্তাধারার প্রবর্তনেও বিশেষ আগ্রহী ছিলেন বিদ্যাসাগর মহাশয়। তাঁর রচনায়, কার্যে নানাভাবে বিজ্ঞান প্রীতির নিদর্শন রেখেছেন তিনি। এমনকি উনিশ শতকের বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার ও তত্ত্ব সম্পর্কেও নিয়মিত খোঁজখবর রাখতেন বলেও জানা যায়।

About Tajul Islam

মো: তাজুল ইসলাম একজন ‌ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভলপার

View all posts by Tajul Islam →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *