বিদ্যাসাগরের উত্তরাধিকার

দুঃখের বিষয়, কলকাতার উচ্চবিত্ত ও শিক্ষিত মধ্যবিত্ত সমাজের দু-একজন বাদে বিদ্যাসাগর মহাশয়ের চরিত্রের বিশালতা অণুধাবন করতে পারেননি কেউই। এই দুই একজনের মধ্যে ছিলেন মহারানি স্বর্ণময়ী দেবী, প্রসন্নকুমার সর্বাধিকারী, মাইকেল মধুসূদন, রামকৃষ্ণ পরমহংস, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর প্রমুখ। বঙ্কিমচন্দ্রের মতো ব্যক্তিত্বও তাঁর সাহিত্যপ্রতিভার যথাযথ মূল্যায়নে ব্যর্থ হন। রবীন্দ্রনাথ অবশ্য তাঁর বিখ্যাত চারিত্রপূজা গ্রন্থে বিদ্যাসাগর চরিত্রে মহত্ব বাঙালি সমাজের সামনে তুলে ধরেন। বিংশ শতকে তাঁর যথাযথ মূল্যায়ন হয়।

স্বাধীনতার পর, দেশে বিদ্যাসাগরকে যথোচিত শ্রদ্ধা জানানো হয়েছিল। তাঁর নামে তাঁর জেলা পশ্চিম মেদিনীপুরে একটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হয়। চালু হয় বিদ্যাসাগর মেলা। কলকাতায় আধুনিক স্থাপত্যের অন্যতম শ্রেষ্ঠ নিদর্শন বিদ্যাসাগর সেতু তাঁর নামে উৎসর্গিত হয়। সাক্ষরতা প্রসারে তাঁর ধর্মনিরপেক্ষ শিক্ষাদর্শই গৃহীত হয়।

About Tajul Islam

মো: তাজুল ইসলাম একজন ‌ওয়ার্ডপ্রেস থিম ডেভলপার

View all posts by Tajul Islam →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *